ছাত্র সংগঠন গুলোর আয়ের উৎস কী ?

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

শিক্ষার্থীদের অধিকার, সমস্যা, দাবি-দাওয়া ও গুণগত শিক্ষা নিশ্চিত করাই হচ্ছে ছাত্র সংগঠনগুলোর মূল কাজ। ৫২-এর ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থান, ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ এবং সর্বশেষ ৯০-এর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে ছাত্ররাই সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে।

কিন্তু অতীতের সেই গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস ছাপিয়ে ৯০ দশকের পর থেকে ধীরে-ধীরে এসব সংগঠনের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উঠতে থাকে। এর মধ্যে আর্থিক কেলেঙ্কারি অর্থাৎ চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, ভর্তিবাণিজ্য ও ছিনতাইয়ের মতো গুরুতর অভিযোগই বেশি।

বর্তমানে ছাত্র সংগঠনগুলো, বিশেষ করে রাষ্ট্রপরিচালনার সঙ্গে যুক্ত আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন যথাক্রমে ছাত্রলীগ ও ছাত্রদল ছাত্রদের অধিকার আদায়ের চাইতে মূল দলের লেজুড়বৃত্তি ও এজেন্ডা বাস্তবায়নে বেশি মনযোগী থাকে। এরপরও বিভিন্ন সময় ছাত্র সংগঠনগুলো ছাত্রদের দাবি-দাওয়া, জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম পরিচালনা এবং তাদের মূল দলের পক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। কিন্তু এসব কার্যক্রম পরিচালনায় ছাত্রদের নিয়ে গঠিত এসব সংগঠনের আয় বা তহবিল সংগ্রহ হয় কীভাবে?

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বলেন,

বছরে আমাদের সংগঠনের অনেক সদস্য ব্যক্তি, ব্যবসায়িক ও চাকরিজীবনে অনেক ভালো অবস্থানে আছেন। তারা সংগঠনের যে কোনো কর্মসূচিতে সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করেন

ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতারা বলছেন, তাদের স্থায়ী আয়ের একমাত্র উৎস হচ্ছে সদস্যদের মাসিক চাঁদা। যদিও সেটি নিয়মিত আদায় করা সম্ভব হয় না। এর বাইরে যে কোনো কর্মসূচি ঘিরে সংগঠনের সাবেক নেতা ও শুভানুধ্যায়ীর চাঁদা/অনুদান সংগ্রহ করা হয়। তবে, এ ক্ষেত্রে বামপন্থি ছাত্র সংগঠনগুলো সাধারণ মানুষের কাছ থেকে গণচাঁদা সংগ্রহ করে তহবিল গঠন করে।

মন্তব্য করুন

error: Alert: Content selection is disabled!!